আলোড়ন নিউজ
Lead News সারাদেশ

প্রনয়ের মেডিকেল কলেজে ভর্তির সম্পূর্ন খরচ দিলেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার

শিমুল চন্দ্র রায়,  জলঢাকা প্রতিনিধি (নীলফামারী): জলঢাকা পৌরসভার দরিদ্র মেধাবী ছাত্র প্রনয় দত্তের পাশে দাঁড়ালেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুজাউদ্দৌলা ও উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহেদ বাহাদুর। প্রনয় এ বছর মেডিকেল কলেজে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছে। কিন্তু টিউশনি করে পড়ালেখা চালানো দারিদ্র মা পুতুল দত্ত ছেলের ভর্তি ও পরবর্তী লেখাপড়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভুগছিলো। জলঢাকা উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুজাউদ্দৌলা সোমবার প্রনয়ের হাতে মেডিকেল কলেজ ভর্তির জন্য ২০ হাজার টাকা তুলে দেন।

এ ছাড়াও উপজেলা পরিষদ থেকে পরবর্তী সময়ের লেখাপড়ার ব্যয় বহনের কথা বলেন তিনি। এসময় উপস্থিত ছিলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার চঞ্চল কুমার ভৌমিক, প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নুর মোহাম্মদ। এর আগে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল ওয়াহেদ বাহাদুর ৫ হাজার টাকা প্রনয়ের পরিবারের হাতে তুলে দেন। প্রনয় দত্ত নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার কলেজপাড়া এলাকার দরিদ্র নিতাই দত্ত ও পুতুল দত্তের ছেলে। প্রনয় ২০১১ সালে মুন কেজি স্কুল থেকে পিএসসিতে জিপিএ ৫, ২০১৪ সালে জলঢাকা মডেল সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জেএসসিতে জিপিএ ৫, ২০১৭ সালে একই স্কুল থেকে এসএসসি তে জিপিএ ৫ এবং জলঢাকা সরকারি কলেজ হতে ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়।

তার বাবা জলঢাকা বাসস্টানে ছোট একটি মুদি দোকান করে ও মা পুতুল দত্ত টিউশনি করে তার লেখাপড়ার খরচ চালাতেন। প্রনয়ের মা পুতুল দত্ত বলেন, আমার ছেলে লেখাপড়ার প্রতি খুবই মনযোগী। মেডিকেলে পড়ার সুযোগ পাওয়ার খবরে পারিবারিক অনটনের কারণে ওর লেখাপড়া নিয়ে চিন্তায় ছিলাম। ইউএনও স্যার, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও এলাকার শিক্ষানুরাগী মানুষের সহায়তায় দিনরাত পরিশ্রম আর মেধার বিকাশ ঘটিয়ে সে ঢাকা মানিকগঞ্জের কর্নেল মালেক মেডিকেল কলেজে পড়ার সুযোগ পেয়েছে। আমাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য চিরদিন তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ থাকবো। উপজেলা নির্বাহী অফিসার সুজাউদ্দৌলা বলেন, প্রনয়ের মতো অদম্য মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের জন্য উপজেলা প্রশাসনের দ্বার সব সময় উন্মুক্ত।

তবে জনগনের টাকায় চিকিৎসক হয়ে প্রনয় যেন এই জনগনের চিকিৎসায় নিজেকে উৎসর্গ করে সেটা আশা করছি। মেধাবী প্রনয় দত্ত সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, পরিবারিক অনটন ছিল কিন্তু লেখাপড়া কখনো ছেড়ে দিইনি। এতদুর আসতে আমাকে সকল পর্যায়ের শিক্ষকবৃন্দ ও শুভাকাঙ্ক্ষীগন যেভাবে সহযোগিতা করেছেন তাতে আমি ও আমার পরিবার তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।

Related posts

করোনায় নতুন করে কোনো রোগী আক্রান্ত হয়নি, তবে মারা গেছে একজন

Ashish Mallick

কলেজছাত্রীকে ধর্ষণের মামলায় অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতা : মো. সোহেল হোসেন

Ashish Mallick

পালিয়ে যাওয়া মেয়ের প্রতি বাবার চিঠি

Mostafij Rahman

Leave a Comment

* By using this form you agree with the storage and handling of your data by this website.