আলোড়ন নিউজ
Lead News সারাদেশ

সিলেটে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না থাকায় করোনায় আক্রান্ত চিকিৎসককে আনা হয়েছে ঢাকায়

নিজস্ব প্রতিবেদক: সিলেটে পর্যাপ্ত ব্যবস্থা না থাকায় করোনায় আক্রান্ত সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপককে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকার কুর্মিটোলা হাসপাতালে আনা হয়েছে।

সিলেটে শহীদ ডা. শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগীদের চিকিৎসার জন্য প্রস্তুত রাখার ঘোষণা দিয়েছিল স্বাস্থ্য বিভাগ। তাহলে কেন করোনা আক্রান্ত রোগীকে ঢাকায় আনতে হয়েছে।একজন করোনা আক্রান্ত রোগীকে চিকিৎসা প্রদানের যথাযথ ব্যবস্থা সম্ভব না হওয়ার কারণে প্রশ্ন উঠছে সিলেটের হাসপাতালগুলির । করোনা চিকিৎসায় অব্যবস্থাপনা, অপ্রতুল সরঞ্জাম ও লোকবলের যথেষ্ঠ অভাবের অভিযোগ উঠেছে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে।

স্বাস্থ্য অধিদফতর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক ডা. আনিসুর রহমান জানান,পরিবারের দাবির প্রেক্ষিতে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য গতকাল সন্ধ্যার দিকে তাকে সড়কপথে অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকার কুর্মিটোলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এই বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক চিকিৎসক জানান, সিলেটে এখনও করোনা আক্রান্ত রোগীর জন্য আলাদা যথেষ্ট চিকিৎসা সেবার ব্যবস্থা (ভেন্টিলেটর সাপোর্টসহ করোনা কেয়ার ইউনিট ও আইসোলেশন সেন্টার) নেই।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, শামসুদ্দিন হাসপাতালে দুটি ইনসেনটিভ কেয়ার ইউনিট (আইসিইউ) বেড কয়েকদিন আগে প্রস্তুত করা হয়। তবে হাসপাতালের মধ্যে সন্দেহজনক রোগীদেরকে যে কক্ষে রাখা হয় (আইসোলেশন ইউনিট) তা যথাযথভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা হয় না। এখানে ভেন্টিলেন্টর থাকলেও সেন্ট্রাল অক্সিজেন, সেন্ট্রাল এয়ারকুলারসহ কিছু সুবিধার ঘাটতি রয়েছে। আইসিইউ’র শর্ত পূরণের জন্যে এসব সুবিধা অত্যন্ত দরকার। এছাড়া আইসিইউ পরিচালনার জন্যে শামসুদ্দিন হাসপাতালে সার্বক্ষণিক কোনও লোকবল নেই। শামসুদ্দিন হাসপাতালের আইসিইউ ইউনিট পূর্ণাঙ্গ না হওয়ায় আক্রান্ত চিকিৎসককে ওসমানী হাসপাতালের আইসিইউতে নেওয়ার প্রস্তাব দেন কয়েকজন চিকিৎসক। কিন্তু অন্য রোগীরা সংক্রমিত হতে পারেন ভেবে সেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়নি।

সমালোচনার মুখে থাকা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ তড়িগড়ি করে গতকাল বুধবার রাতেই শামসুদ্দিন হাসপাতালে সংবাদ সম্মেলনে করে। এসময় হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ডা. ইউনুসুর রহমান বলেন, শহীদ শামসুদ্দিন হাসপাতালে করোনা আক্রান্তদের সেবার জন্য দুটি আইসিইউ ইউনিট কার্যকর আছে। দুদিনের মধ্যে আরও ৯টি ইউনিট পুরোপুরিভাবে চালু হবে। ৯টি ভেন্টিলেশন মেশিন আগামীকাল সিলেটে এসে পৌঁছার কথা রয়েছে। দু-একদিনের মধ্যে এ হাসপাতালে ১১টি ভেন্টিলেশন মেশিন চালু হবে। সিলেটে করোনা আক্রান্তদের সেবায় প্রস্তুত রয়েছে স্বাস্থ্য বিভাগ। তবে ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালকে করোনামুক্ত রাখতে সেখানে আইসিইউ বিভাগে কাউকে ভর্তি করা হচ্ছে না।

 

Related posts

দেশের সব স্টেডিয়াম করোনা রোগীদের জন্য চিকিৎসায় ব্যবহার করা যাবে

Ashish Mallick

সরকারি মুড়াপাড়া কলেজ ছাত্র সংসদ নির্বাচনের ফল

Shakil Ahmed

দীপিকার ঘরে কে আসছে নতুন অতিথি?

Ashish Mallick

Leave a Comment

* By using this form you agree with the storage and handling of your data by this website.