আলোড়ন নিউজ
Lead News সারাদেশ

দেশের চলমান পরিস্থিতিতে এখনও সচেতন হয়নি কৌরশমুন্সী বাজার কমিটি

রাশেদ হোসেন:দেশের করোনার চলমান পরিস্থিতিতে দেশের ৬০টি জেলায় করোনায় আক্রান্ত রোগি পাওয়া গেছে। তার মধ্যে কোনো উৎসর্গ ছাড়াই ফেনী দাগনভূইয়া উপজেলার পিআইও করোনা পরিক্ষা করে রেজাল্ট পজেটিব পাওয়াতে ফেনীর দাগনভূঞা উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ও এক নারীর শরীরে করোনা ভাইরাসের উপস্থিতি নিশ্চিত হওয়ার পর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, নির্বাহী কর্মকর্তা পৌর মেয়রসহ ১৩ জনকে হোম কোয়ারেন্টাইনে প্রেরণ করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ।

আর কেউ কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত কিনা তা জানতে গত বৃহস্পতিবার জনপ্রতিনিধি ও কর্মকর্তা থেকে ২৪ জনের নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষাগারে পাঠানো হয়েছে।এর মধ্যে ফেনীতে চিকিৎসক নার্স সহ আরো ৮ জন নতুন করে করো আক্রান্ত হয়েছে।
দাগনভূইয়া করোনাভাইরাসে আক্রান্ত সন্দেহে পাঠানো উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান দিদারুল কবির রতন, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রবিউল হোসেন ও স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. রুবাইয়াত বিন করিমের শরীরের নমুনা পরীক্ষায় করোনাভাইরাসের কোনো অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। গত শনিবার রাতে চট্টগ্রামের ভেটেরিনারি ও অ্যানিমেল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে নমুনা পরীক্ষায় ফল নেগেটিভ এসেছে।
সিভিল সার্জন ডা. সাজ্জাদ হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া এক ব্যক্তির নমুনাও নেগেটিভ এসেছে। এছাড়া উপজেলা পর্যায়ের সরকারি কর্মকর্তা আক্রান্ত হওয়ার পর সংস্পর্শে আসায় দিদারুল কবির রতন, মো. রবিউল হোসেন ও ডা. রুবাইয়াত বিন করিম ও স্বাস্থ্য বিভাগের অপর এক কর্মীর নমুনা সংগ্রহ করে ভেটেরেনারিতে পাঠানো হয় আক্রান্ত ব্যক্তিকে তার বাসায় চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।তার পর ও দেশের অর্থনৈতিক অবস্থার কথা চিন্তা করে গত ১০মে দুরত্ব বজায় রেখে কিছু সংখ্যক দোকান পাঠ খোলার কথা থাকলে ও দেশের বৃহত্তম মার্কেট বসুন্ধরা সিটি যমুনা ফিউচার পার্ক বন্ধের ঘোষনা দেয় মার্কেট মালিকগণ।

তাছাড়া বিভাগীয় শহর গুলোতে ও দোকান মার্কেট বন্ধ রাখারা সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে। তারই সাথে ফেনী জেলার ঈদ পর্যন্ত ফেনীর সকল ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে। তবে সরকার ঘোষিত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এর আওতামুক্ত থাকবে নিত্য প্রয়োজনীয় খাদ্য দ্রব্যাদি, ঔষধসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠান। ফেনীর ব্যবসায়ী সংগঠনের জরুরি যৌথ সভা শেষে এ কথা জানান শহর ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পারভেজুল ইসলাম হাজারী।

তখন থেকে কিছু সংখ্যক দোকান মার্কেট খোলা কারনে দোকানদারগন দুরত্ব বজায় না রেখে দোকান পরিচালনা করাতে হুহু করে বেডে গেছে মৃত্যুর মিছিল ও করোনা আক্রান সংখ্যা।

তেমনি ফেনী জেলার দাগনভূইয়া থানাধীন কৌরশমুন্সী বাজারে বাজার কমিটির সচেতনাতার কারনে দোকানদার গন কোনো নিয়ম কানুন না মেনে দুরত্ব বজায় না রেখে ব্যবসা পরিচালনা করতেছে। এমতাবস্থায় এখানে ও করোনা আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেডে গেলো বলে আমি মনে করি।তাই দাগনভূইয়া উপজেলা প্রসাশনের দ্রুত পদক্ষেপ কামনা করছি ।

Related posts

লামায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৩তম জন্মবার্ষিকী পালন

Ashish Mallick

সংসদ সদস্যদের লিডারশিপ ও বাজেট সমাপনী পর্ব

Ashish Mallick

খালেদা জিয়া মুক্ত হলে ক্ষমতাসীনরা নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে: ফখরুল

Ashish Mallick

Leave a Comment

* By using this form you agree with the storage and handling of your data by this website.