আলোড়ন নিউজ
Lead News অর্থনীতি সারাদেশ

২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেটে প্রবাসীদের যেসব সুবিধা ঘোষণা দিল অর্থমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে করোনা মহামারিকালে ২০২০-২১ অর্থবছরের ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেট পেশ করছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। এটি আওয়ামী লীগ সরকারের ২২তম বাজেট। ২০২০-২১ অর্থ বছরে প্রবাসীদের আয়ের বিপরীতে প্রণোদনা হিসাবে ৬০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে। প্রবাসীরা লাখ টাকা পাঠালেই সরকারের পক্ষ থেকে পাবেন আরও ২ হাজার টাকা। গত অর্থবছর থেকে প্রবাসীরা বছরে যে পরিমাণ রেমিট্যান্স পাঠান তার ওপর দুই শতাংশ হারে প্রণোদনা দেওয়া হচ্ছে। আগামীতেও এই সুবিধা চলমান থাকবে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদ ভবনে ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট বক্তৃতায় এই ঘোষণা দেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

বর্তমানে রফতানিযোগ্য বিভিন্ন পণ্যে একাধিক হারে প্রণোদনা দেওয়া হয়। এর বাইরে দ্বিতীয়বারের মতো সেবাখাত হিসেবে প্রবাসী আয়ে একই সুবিধা দেওয়া হবে। যারা বৈধ পথে তথা ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স পাঠাবেন, শুধু তারাই এ প্রণোদনা পাবেন।

ব্যাংকিং চ্যানেলে রেমিট্যান্স পাঠানোকে উৎসাহিত করতে প্রবাসীদের এ সুবিধা দেওয়া হবে। সরকার আশা করছে, বিদেশে কর্মরত বাংলাদেশি অর্থাৎ প্রবাসীদের জন্য এ সুবিধা কার্যকর হলে দেশে বৈধ পথে রেমিট্যান্সের পরিমাণ আরও বাড়বে।

বৈদেশিক মুদ্রা সংগ্রহে ব্যাংকগুলোর তৎপরতা বৃদ্ধি, ব্যাংকিং চ্যানেলের সঙ্গে অবৈধ চ্যানেলে ডলারের দরে খুব একটা পার্থক্য না থাকা এবং হুন্ডি প্রতিরোধে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের বিভিন্ন পদক্ষেপসহ নানা কারণে রেমিট্যান্স বেড়েছে বলে সংশ্লিষ্টদের ধারণা।

৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেট জিডিপির ১৯ দশমিক ৯ শতাংশ। নতুন অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে জিডিপির আকার ধরা হয়েছে ৩১ লাখ ৭১ হাজার ৮০০ কোটি টাকা। ৫ লাখ ৬৮ হাজার কোটি টাকার বাজেটে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) ব্যয় ধরা হয়েছে ২ লাখ ৫ হাজার ১৪৫ কোটি টাকা।

উল্লেখ্য, ১৯৭২ সালের ৩০ জুন মাত্র ৭৮৬ কোটি টাকার বাজেট উপস্থাপন করেন দেশের প্রথম অর্থমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমেদ। ১৯৭৪ সালে বাজেটের আকার ছাড়ায় ১ হাজার কোটি টাকা, যা ১৯৮৮ সালে দাঁড়ায় ১০ হাজার ৫৬৫ কোটি টাকায়।

২০০৩ সালে ঘোষিত ৩১তম বাজেট প্রথমবারের মতো ৫০ হাজার কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়। অর্থমন্ত্রী এম সাইফুর রহমানের পেশ করা ওই বাজেটের আকার ছিল ৫১ হাজার ৯৮০ কোটি টাকা। ৬ বছর পর ২০০৯-১০ অর্থ বছরে যা ১ লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়। অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের প্রস্তাবিত সে বাজেটের আকার ছিল ১ লাখ ১৩ হাজার ১৭০ কোটি টাকা।

২০১১ সালের ৯ জুনে পেশ করা বাজেটের আকার ছিল ১ লাখ ৬৩ হাজার ৫৮৯ কোটি টাকা। মহাজোট সরকারের গত মেয়াদের শেষ বাজেট দুই লাখ কোটি টাকা ছাড়িয়ে যায়, আকার ছিল ২ লাখ ২২ হাজার ৪৯১ কোটি টাকা। দ্বিতীয় মেয়াদের মহাজোট সরকারের প্রথম বাজেট দেয়া হয় ২০১৪ সালের ৫ জুন। যার আকার ছিল আড়াই লাখ কোটি টাকার বেশি।

দুইবছর পরই ২০১৬-১৭ অর্থবছরের বাজেটের আকার দাঁড়ায়, ৩ লাখ ৪০ হাজার ৬০৫ কোটি টাকা। ২০১৭-১৮ অর্থবছরের বাজেট ৪ লাখ কোটি টাকার মাইলকফলকে পৌঁছায়। ঘোষণা করা হয় ৪ লাখ ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার বাজেট। ২০১৮-১৯ অর্থবছরে এ বাজেটের আকার হয় ৪ লাখ ৬৩ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকা। ২০১৯-২০ অর্থবছের তা পৌঁছায় ৫ লাখ ২৩ হাজার ১৯০ কোটি টাকায়।

Related posts

ফরিদপুরে হত্যা মামলায় ৭ জনের ফাঁসি

Ashish Mallick

তিউনিসিয়ায় নৌকা ডুবে ৮০ অভিবাসীর মৃত্যু

Mostafij Rahman

নওগাঁর বদলগাছী‌তে বাংলা‌দেশ জা‌তীয়তাবা‌দী দল বিএন‌পির কর্মী সভা অনু‌ষ্ঠিত

Ashish Mallick

Leave a Comment

* By using this form you agree with the storage and handling of your data by this website.