আলোড়ন নিউজ
শিক্ষা

কুবি প্রশাসনের উদাসীনতায় মেগা প্রকল্পের ৩ মাস হলেও কাজ শুরু হয়নি!

কুবি প্রতিনিধি,ইসমাঈল হোসেন: কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় (কুবি) অধিকতর উন্নয়নের জন্য সম্প্রতি পাওয়া প্রকল্পটি শুরুতেই বড় ধরনের হোঁচট খেয়ে টালমাটাল হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বিশ্ববিদ্যায়য়ের কর্তাব্যক্তিদের অদক্ষতা ও উদাসীনতায় এতো বড় একটি প্রকল্পের ১ম পর্যায়ের অর্থ প্রায় তিন মাস পরেও হাতে পাওয়া যায়নি। এ নিয়ে বিভিন্ন মহলে শোনা যাচ্ছে নানা গুঞ্জন ।
জানা যায়, গত বছরের অক্টোবর মাসে ‘কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর উন্নয়ন’ শিরোনামে ১ হাজার ৬৫৫ কোটি ৫০ লক্ষ টাকার মেগা প্রকল্প অনুমোদন দেয় বাংলাদেশ সরকারের জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। এ প্রকল্পে অবকাঠামোগত উন্নয়নের জন্য নির্ধারিত রয়েছে প্রায় ১ হাজার কোটি টাকা এবং ভূমি অধিগ্রহণের জন্য রয়েছে প্রায় ৬’শ কোটি টাকা। প্রকল্পটি ২০১৮ সালের নভেম্বর থেকে শুরু হয়ে ২০২৩ সালের জুন মাস এর মধ্যে বাস্তবায়ন করতে নির্দেশনা রয়েছে। প্রকল্পটির কাজ শুরু হওয়ার কথা গেল বছরের নভেম্বরেই। উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য এই অর্থ বিভিন্ন পর্যায়ে বা ধাপে শিক্ষা মন্ত্রণালয় ছাড় দিয়ে থাকে। এর জন্য প্রকল্প পাওয়া প্রতিষ্ঠান যথাযথ প্রক্রিয়ায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়কে অর্থ ছাড় দেওয়ার আবেদন করলেই ঐ ধাপের অর্থ ছাড় দেওয়া হয়। কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের এ প্রকল্পটির ১ম পর্যায় বা ধাপের প্রায় ৩৮৫ কোটি টাকার জন্য সময়মত কাগজপত্র জমা না দিতে পারায় শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে এ টাকা ছাড় দেওয়া হয়নি। ফলে প্রকল্পের সময়সীমার মধ্যে ৩ মাস অতিবাহিত হলেও কাজ শুরু করা সম্ভব হয়নি। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উদাসীনতা ও অদক্ষতার কারনেই প্রকল্পের ১ম পর্যায়ের অর্থ যথা সময়ে পাওয়া যায়নি বলে মন্তব্য করেছেন প্রশাসনের একাধিক কর্তাব্যক্তি।
এ বিষয়ে বাংলাদেশ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিকল্পনা বিভাগের যুগ্ম-প্রধান কাজী মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘যথাযথভাবে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ টাকার জন্য আবেদন করতে পারেনি। তবে এ টাকা তারা চাইলে ২য় ধাপে যুক্ত করে নিতে পারবে।’
এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েকজন কর্তাব্যক্তিদের অনভিজ্ঞতা, অদক্ষতা ও উদাসীনতার কারণে নানা সমস্যার সম্মুখিন হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়টি। প্রতিষ্ঠানটির বেশ কয়েকজন শিক্ষক ও কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘প্রকল্প অনুমোদনের আগে কয়েকজনকে নিয়ে ঠিকই দ্রুত কাজগুলো সম্পাদন করেছিল কিন্তু কাজ শুরুর বিষয়ে তারা ব্যর্থ হবে এটাই স্বাভাবিক। প্রস্তাবিত জমিতে প্রায় ২০ জন শিক্ষক নামে বেনামে জমিও কিনে রেখেছেন।’
এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (চলতি দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের বলেন, ‘মন্ত্রণালয় থেকে কাগজপত্র প্রস্তুত হয়ে আসতে সময় লাগায় প্রকল্পের প্রথম ধাপের টাকার জন্য আবেদন করতে পারিনি। আমরা দ্বিতীয় ধাপে প্রথম ধাপের টাকাসহ এক সাথে পেয়ে যাব।’
অন্যদিকে ২০১৪-২০১৫ অর্থ বছরে উন্নয়ন প্রকল্প-২ নামে কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় ৬৮ কোটি ৫৬ লক্ষ টাকা বরাদ্দ পায়। এ প্রকল্পে বিভিন্ন উন্নয়ন কাজের কথা রয়েছে। প্রকল্পটি চলতি বছরের জুনে শেষ হবে বলে জানা যায়। এ প্রকল্পে অধীনে এখন বেশ কয়েকটি কাজ চলমান থাকলেও তা মন্থর গতিতেই চলছে। এর মধ্যে ছাত্রীদের জন্য একটি আবাসিক হল নির্মানাধিন রয়েছে। আগের উপাচার্য ২০১৭ এর ৩ ডিসেম্বর মেয়াদ শেষ করে চলে যাওয়া পূর্বে এ হল নির্মানের অফিস আদেশ দিয়ে যান। কিন্তু বর্তমান উপাচার্য গত বছরের ৩১ জানুয়ারি যোগদান করার পরও তা চলছে কচ্ছপ গতিতে। শিক্ষক ক্লাব কাম ডরমেটরি নামে একটি ভবনের অফিস আদেশ পূর্বের উপাচার্য করে গেলেও বর্তমান উপাচার্য তার এক বছরের মেয়াদে ভূমি সমান করা ছাড়া কিছুই করতে পারেননি।

Related posts

ধর্মকে হেয় করে বক্তব্য প্রদানে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সতর্কতা

Mamun Sheikh

যাদুর শহরের যাদুকর কই?

Mamun Sheikh

জবিতে সকল ভবনে অগ্নি নির্বাপণের ব্যবস্থার দাবি ছাত্রফ্রন্টের

Mamun Sheikh

Leave a Comment

* By using this form you agree with the storage and handling of your data by this website.